স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করতে চান বাবুনগরী

গ্রেফতার এবং অন্তঃকলহে জর্জরিত হেফাজত। গত বছরের নভেম্বরে হেফাজতের দায়িত্ব নিয়েছিলেন জুনায়েদ বাবুনগরী এবং বিপুল জনপ্রিয়তায় তিনি আমির নির্বাচতি হয়েছিলেন। শুধু আমির নির্বাচিত হননি আহমেদ শফির পক্ষে যারা ছিলেন তাদের সবাইকে কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে বাদ দিয়ে জুনায়েদ বাবুনগরী তার নিজের মতো করে দল গুছিয়েছিলেন।

কিন্তু এখন হেফাজতে বাবুনগরীর কতৃত্ব নেই বললেই চলে বরং নানা প্রশ্নে তিনি জর্জরিত। হেফাজতের একের পর এক নেতাদের গ্রেফতারের প্রেক্ষিতে তিনি কি করছেন এটি নিয়ে তিনি যেমন উগ্রবাদীদের জবাব দিতে পারছেন না। আবার কেন এরকম পরিস্থিতি হলো সেটি নিয়ে নমনীয় এবং শফি পন্থিদের প্রশ্নেরও উত্তর দিতে পারছেন না। এরকম পরিস্থিতিতে বাবুনগরী হেফাজতের কয়েকজন শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করে তিনি পদত্যাগের ইচ্ছা ব্যক্ত করেছেন।

তিনি মনে করছেন পদত্যাগ করলেই হয়তো সমস্যার সমাধান হবে। তবে ওই বৈঠকে উপস্থিতি অন্তত দু্জন নায়েবে আমির তার এই পদত্যাগের ঘোষণার বিরোধীতা করেছেন। তারা বলেছেন যে এই মূহুর্তে পদত্যাগ কোনো সমাধান নয়। তবে এ ব্যাপারে বাবুনগরীর এখনই পদত্যাগ করবেন কি না এটি নিয়ে হেফাজতের মধ্যে মতবিরোধ রয়েছে।

বাবুনগরী পদত্যাগ করুক আর নাই করুক হেফাজত যে ক্রমশ ভাঙনের দিকে যাচ্ছে সেটি নিশ্চিত কারণ বাবুনগরী যদি পদত্যাগও করেন তার পরও বাবুনগরী পন্থিরা হেফাজতের কতৃত্ব ছাড়বেন না। এদিকে আহমেদ শফি পন্থিরাও সক্রিয় হবেন এরকম পরিস্থিতিতে জুনায়েদ বাবুনগরীর পদত্যাগ হেফাজতের ভাঙন ঠেকাতে পারবে না বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা।

সূত্র- বাংলাইনসাইডার